একদম লো বাজেট থেকে মিডরেঞ্জ ওয়ালটন এর সবজায়গায় বিচরন। লো বাজেট এর ভেতর তুলনামূলক ভালো মানের অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোনের জন্য প্রিমো ই সিরিজ বরাবরই জনপ্রিয়। খুবই সল্প মূল্যে  অ্যান্ড্রয়েড স্মার্টফোন হাতে তুলে দিয়ে ব্যবহারকারিকে স্মার্ট ই-জগতের সাথে যুক্ত করে দেয়াই প্রিমো ই সিরিজের লক্ষ্য।

ওয়ালটন এবার বাজারে নিয়ে এল তাদের প্রিমো ই১০ স্মার্টফোন। স্মার্টফোনটির দাম নির্ধারণ করা হয়েছে মাত্র ৩৩৯৯ টাকা। অর্থাৎ সাড়ে তিন হাজার টাকারো কমে বাজারে পাওয়া যাবে এই স্মার্টফোনটি। একে আমরা যদি একটি বেসিক এন্ট্রি লেভেল অ্যান্ড্রয়েড ফোন  বলি সেটাই ভালো হয়।
একনজরে প্রিমো ই১০,

  • অ্যান্ড্রয়েড ৮.১ গো সংস্করন
  • ১.৩ গিগাহার্জ কোয়াড কোর প্রসেসর
  • ৫১২ এমবি র‍্যাম, ৮ জিবি রম
  • ২০০০ এমএএইচ ব্যাটারি
  • ৫ মেগাপিক্সেল রিয়ার এবং ২ মেগাপিক্সেল ফ্রন্ট কামেরা

বক্সে যা যা পাবেনঃ ই১০ ডিভাইসটি, একটি হেডফোন, একটি চার্জার আড্যাপটার, একটি ইউএসবি কেবল, এবং ওয়ারেন্টি কার্ড ও ইউজার ম্যানুয়েল।

অপারেটিং সিস্টেম এবং ইউজার ইন্টারফেস

এতো কমদামি স্মার্টফোনটিতেও আপনি পাচ্ছেন,   অ্যান্ড্রয়েড এর অরিও সংস্করন। যদিও এটা অ্যান্ড্রয়েড এর বিশেষ অপ্টিমাইজড গো সংস্করণ। আর এই গো সংস্করণ আসলের থেকে অনেক বেশি লাইট। আর যে কারনে এটিকে লো এন্ড হার্ডওয়্যারে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। স্মার্টফোনটিতে আপনি একদম স্টক গো ভার্সনেরই স্বাদ পাবেন। তাছাড়াও এতে আপনি গুগলের ৫টি গো এডিশন অ্যাপস পাবেন। এগুলি হলোঃ অ্যাসিস্ট্যান্ট, জিমেইল, ম্যাপ, ইউটিউব, ফাইলস।

ডিসপ্লে এবং বডি

এতে থাকছে একটি ৫ ইঞ্চি এফ-ডাব্লিউ-ভি-জি-এ ডিসপ্লে। ৩৩৯৯ টাকার ফোন হিসেবে ৫ ইঞ্চি ডিসপ্লে একটি প্লাস পয়েন্ট। ডিসপ্লেটি সাইড দিয়ে ২.৫ ডি কার্ভড। ফোনটির সাথে কেনা থেকে একটি প্রটেকশন পেপার যুক্তই থাকবে।

এর ডিসপ্লে প্রযুক্তির কারণে সাইড থেকে ভিউইং এঙ্গেলে দেখতে একটু সমস্যা মনে হতে পারে। ব্লু, লাইট ব্লু, পারপেল এবং রেড এই তিনটি রঙে ফোনটি বাজারে পাওয়া যাবে। ডিভাইসটি ১০ ন্যানোমিটার পুরু। সব মিলে এর ওজন প্রায় ১৫৬ গ্রাম।

হার্ডওয়্যার এবং মেমরি

স্মার্টফোনটির হার্ডওয়্যার থেকে বেশি কিছু আশা না করাই ভালো। আর নিশ্চয়ই গেমিং বা মাল্টি টাস্কিং  এর জন্য এই ফোনটি কিনছেন না। সময় কাটানোর জন্য ছোটো খাটো কিছু ২ডি গেমস তো খেলতে পারবেনই, তাছাড়া ফেসবুকিং এবং মেসেজিং এর জন্য এই হার্ডওয়্যারে স্পেসিফিকেশন আপনার জন্য কাজের হবে। আর ইন্টারনাল স্টোরেজ ৮ জিবির মধ্যে আপনি প্রায় ৪ জিবি ফাকা পাবেন। ফোনটিতে বেশি অ্যাপস ইন্সটল করার পরামর্শ দেব না।

১.৩ গিগাহার্জ কোয়াডকোর সিপিইউ এর পাশাপাশি এতে পাওয়া যাবে মালি ৪০০ এমপি জিপিইউ। এন্ট্রি লেভেল এই বাজেট ফোনটিতে থাকবে ৫১২ এমবি র‍্যাম। সুতরাং বাজেট এর হিসেবে এগুলোর চাইতে আর বেশি কিছু আশা করা বোকামি হয়ে যাবে।

ক্যামেরা

ফোনটির ফ্রন্টপ্যানেলে একটি ২ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা পাওয়া যাবে। আর এতে এইচডিআর, ফেস বিউটি এর মত ক্যামেরা ফিচারস পাওয়া যাবে। ভিডিও শুটিং এর ক্ষেত্রে এর সামনে পিছে ইলেক্ট্রনিক ইমেজ স্টেবিলাইজেশন সুবিধা পাওয়া যাবে। রিয়ার প্যানেলে থাকছে একটি ৫ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা। ফ্রন্টে না থাকলেও রিয়ার প্যানেলে ক্যামেরার সাথে এলইডি ফ্ল্যাশ পাওয়া যাবে।


এটি ৪জি সাপোর্টেড নয়। ফোনটি কাদের জন্য? নিশ্চয়ই হেভি ইউজিং তথা তরুণদের জন্য নয়। আপনি যদি আপানার বাসার বয়স্ক কাউকে একটি অ্যান্ড্রয়েড ফোন দিতে চান, অথবা বাসার জন্য একটি অ্যান্ড্রয়েড ফোন রাখতে চান, তবে এই প্রিমো ই১০ কিনতে পারেন।