ডেস্কটপ বলেন আর ল্যাপটপ বলেন দুটোর মধ্যেই রয়েছে একটি বিশেষ চিপ , যাকে আমরা র‍্যাম (Random Access Memory) বলে জানি ও চিনি। র‍্যাম একধরনের হার্ডওয়্যার । এটি সাধারনত দ্রুত কোনো সফটওয়্যার বা আপনার  কাজের গতিপথ তৈরী করে দেয়। আপনি বর্তমানে যে ব্রাউজারটি চালাচ্ছেন তা দ্রুত কাজ অন্যতম কারন হচ্ছে র‍্যাম । র‍্যাম হল একধরনের স্মৃতি শক্তির মত । যতক্ষন র‍্যামের মধ্যে বিদ্যুত চলাচল করবে ততক্ষন স্মৃতি থাকবে । অস্থায়ীভাবে রিড/রাইট স্পীড বাড়িয়ে কম্পিউটার সচল রাখাই র‍্যামের প্রধান কাজ।

কম্পিউটার চালাতে গেলে র‍্যামের প্রয়োজনীয়তা আবশ্যিক । কেননা র‍্যাম না থাকলে আপনি ডেস্কটপ চালুই করতে পারবেন না । অনেক সময় দেখবেন কম্পিউটার এর অন বাটনে চাপ দিলে  চালু হচ্ছে না কিন্তু বিপ শব্দ হচ্ছে । এর কারন হল র‍্যাম কোনো এক কারনে কাজ করছে না । কম্পিউটারের যাবতীয় প্রসেসিং দ্রুত করতে হয় র‍্যামের মাধ্যমে। র‍্যামের কাজ অস্থায়ী স্মৃতি হিসেবে কাজ করা ;রমের মত কাজ নয়। আপনি যেকোনো গেম বা অন্যকোনো সফটওয়্যার এ কাজ করবেন তখন আপনার অজান্তে র‍্যাম কাজ করে যাবে । আপনি যদি র‍্যাম ও প্রসেসরের গতিবিধি লক্ষ্য করতে চান তাহলে আপনি এই  8gadget pack  নামক সফটওয়্যারটি ডাউনলোড করতে পারেন যদি আপনি উইন্ডোজ ১০  ব্যাবহার করে থাকেন। তবে  উইন্ডোজ ৭ এ বিল্টইন ভাবে দেয়া থাকে ।

আপনি সাধারন একটি বিষয় ভেবে দেখেন বর্তমান বাজারে ১ টেরাবাইট হার্ডডিস্ক এর দাম ৩৮০০ টাকা । অন্যদিকে মাত্র ৪ গিগাবাইট DDR4 এর র‍্যামের দাম ২০০০ হাজার টাকা । কোথায় ১০২৪ গিগাবাইট আর কোথায় ৪ গিগাবাইট কিন্তু দামের দিক দিয়ে হার্ড ডিস্কের এর অর্ধেক । কখনো ভেবে দেখেছেন কেনো এমন হলো ? প্রসেসর আর হার্ডডিস্ক যতো দ্রুতই কাজ করুক না কেনো। র‍্যামের সাথে কখনোই পারবে না। স্মুথলি কাজ করতে গেলে র‍্যাম আবশ্যাক । এর র‍্যামের ফলেই আপনি সহজেই যেকোনো কাজ অনায়াসে করতে পারবেন । হোক সেটা ব্রাউজিং বা গেমিং। এখন আসি সুবিধা অসুবিধা নিয়ে –

র‍্যামে সাধারনত ডাটা সেভ হয়না কিন্তু হার্ডডিস্কে সেভ করা যায় । কখনো হুট করে বিদ্যুত চলে গেলে বা আপনি কম্পিউটার বন্ধ করে দিলে আবার যদি চালু তবে আগে ব্যাকগ্রাউন্ডে যে প্রোগাম চলছিল তার কোনো হদিস এখন খুজে পাবেন না । হার্ডডিস্কে এ যেমন ডাটা রাখলে আপনি সেটা না ডিলেট করা  পর্যন্ত থেকে যায় , র‍্যাম এর ক্ষেত্রে সব ডিলেট হয়ে যায় আপনা-আপনি । এই কারনেই র‍্যাম এর ট্রান্সফার স্পিড অনেক বেশি । কিন্তু র‍্যাম এর মেমরির সাইজ এর ওপর সব ডিপেন্ড করে না। র‍্যামের ভোল্টেজ এবং বাস স্পিড এখানে অনেক বড় একটা বিষয় । একই বাস স্পিড এর DDR3 র‍্যাম এর থেকে DDR4র‍্যাম অবশ্যই ভালো পারফর্মেন্স দেবে । আবার একি ভোল্টেজ এর কম বাস স্পিড ওয়ালা র‍্যাম থেকে ভালো পারফর্মেন্স দেবে  বেশি বাস স্পিড ওয়ালা র‍্যাম। এখানে অপটিমাইজেশন এর একটা ব্যাপার আছে ।

অনেক সময় দেখা যায় র‍্যাম পুড়ে যায় । কেননা এর ভিতর দিয়ে সবসময় দ্রুতগতিতে বিদ্যুত চলাচল করে।মাঝে মাঝে কিছু কমদামি র‍্যামে স্পেশাল হিটসিঙ্ক দেয়া থাকে না । হিটসিঙ্ক তাপ দূর করে।কিছু সময় খারাপ হিটসিঙ্ক লাগিয়ে র‍্যাম বিক্রি করা হয় যা বেশিদিন টেকসই হয় না । কিন্ত ভালো কোম্পানির র‍্যাম হলে হিটসিঙ্কের দরকার পড়ে না ।

আপনার যদি একটি ৮ জিবি র‍্যাম থাকে এবং আপনি যদি আরো একটি র‍্যাম কেনার প্রয়োজন মনে করেন তবে দেখে নিন আপনি কোন ব্র্যান্ডের , কোন বাসের র‍্যাম ব্যাবহার করছেন । কেননা সকল প্রোভাইডারদের র‍্যাম একই ভাবে অপটিমাইজেশন করে না । তাই একই বাসের একই কোম্পানির ও একই সাইজের র‍্যাম কিনলে পারফেক্ট অপ্টিমাইজেশনের নিশ্চয়তা পাবেন ।

মাঝে মাঝে অনেকেই ভ্যাবাচ্যাকায় পড়ে যায় যে তার কতটুকু র‍্যাম দরকার । আপনিও পড়তে পারেন এমন অবস্থাতে । আমাদের দেশে স্বভাবতই সবাই প্রথমে ৪ গিগাবাইটের র‍্যাম ব্যাবহার করে । কেউ ৪ গিগাবাইটের ডুয়েল চ্যানেল করে । কিন্তু এতে সব ই সুবিধা । অসুবিধাটা হল কখনো র‍্যাম বাড়াতে হলে স্লট খুজে পাবেন না সার্ভার মাদারবোর্ড ছাড়া । আসলে এটি পুরোপুরি আপনার ওপর ডিপেন্ড করে যে আপনি কি করবেন ? কারন আপনি যদি গেম খেলার জন্য পিসি কিনেন তবে র‍্যাম ৮+৮=১৬ জিবি লাগবে ফর এক্সট্রিম পারফরমেন্স । GTA 5 এর ই নূন্যতম রেকমেন্ডশেন ৮ জিবি । তাহলে ভালো পারফরমেন্স পেতে হলে ১৬ জিবি লাগবেই।আবার SSD (State Storage Device) লাগালে আরো ভালো পারফরমেন্স পাবেন । তবে গ্রাফিক্স কার্ডের কথা ভুলে যাবেন না । আবার আপনি যদি সাউন্ড ইডিটিং বা গ্রাফিক্স ডিজাইনিং করেন তবে তার জন্যও বেশী র‍্যামের প্রয়োজন পড়ে । সেখানেও হাই এন্ড গ্রাফিক্স কার্ড লাগবে ।

Ram, Image From enacademic

কিন্ত ভালো ব্যাপার হল আপনি যদি হালকা কাজের জন্য যেমন ব্রাউজিং,মুভি দেখা,গান শোনা,লিখা-লিখি কাজের জন্য পিসি নেন তবে ৪ জিবি যথেষ্ট।তবে দেখবেন তাও যদি টাস্কবার বা 8gadgest pack দিয়ে চেক করবেন যদি ৯০% এর বেশি লোড থাকে তবে আরো ৪ জিবি লাগিয়ে নিবেন । দারুন পারফরমেন্স পাবেন ।

আশা করি অনেকটুকুই বুঝাতে এবং সহজ করে দিতে সক্ষম হয়েছি । আরো বিস্তারিত তথ্য জানতে আমাদের সাথে জুড়ে থাকুন ।