হারবার্ট মার্শাল ম্যাকলুহান হলেন কানডিয়ান দার্শনিক ও লেখক। তিনি সর্বপ্রথম বিশ্বগ্রাম বা গ্লোবাল ভিলেজ শব্দটি সবার সামনে তুলে ধরেন। ১৯৬২ সালে তার প্রকাশিত ‘The Gutenberg Galaxy: the making of Typographic Man’ এবং ১৯৬৪ সালে প্রকাশিত ‘Understanding Media: The Extenaion of Man’ বইয়ের  মাধ্যমে এ বিষয় প্রকাশ করেন। যেখানে তার মূল বক্তব্য ছিল পৃথিবী একটি একক পরিবার।

দ্বিতীয় বইয়ে ম্যাকলুহান বর্ণনা করেছেন কীভাবে বৈদ্যুতিক প্রযুক্তি এবং তথ্যের দ্রুত বিচরণ দ্বারা বিশ্ব একটি গ্রাম বা ভিলেজ রূপ লাভ করে। তিনি বলেন “গ্লোবাল ভিলেজ হলো একটি ধারণা যেখানে মানুষ সহজ যাতায়াত,গণমাধ্যম,ইলেকট্রনি কমিউনিকেশন দ্বারা পরস্পর সংযুক্ত এবং একটি একক কমিউনিটিতে পরিণত হয়।” তিনি অারও বলেন একটি দুনিয়া যেখানে সব দেশ একটি অপরটি ওপর নির্ভরশীল এবং অাধুনিক যোগাযোগ এবং যাতায়াত ব্যবস্হার মাধ্যমে খুব বেশি কাছাকাছি মনে হয়। এর মাধ্যমে মানুষ খুব সহজেই দূরদূরান্ত থেকে যোগাযোগ করতে পারে। এতে মানুষের অনেক সময় বেঁচে যায়। মানুষ এখন ঘরে বসেই ইন্টারনেটের মাধ্যমে অাউটসোসিং করে উপার্জন করছে। ঘরে বসেই পণ্য কেনা-বেচা করা যাচ্ছে। বিশ্বগ্রাম এর কারণে সৃষ্ট যোগাযোগের কারণে মানুষ ব্যাপক সুবিধা ভোগ করছে।

ম্যাকলুহান ইউনিভার্সিটি অব টরেন্টারে ছিলেন ১৯৭৯ সাল পর্যন্ত এবং এর মধ্যে বেশিরভাগ সময় তিনি ব্যায় করেন সেন্টার ফর কালচার এন্ড টেকনোলজি প্রধান হিসাবে। ১৯৭৯ সালের সেপ্টেম্বরে তিনি স্ট্রোক অাক্রান্ত হন এবং ১৯৮০ সালের ৩১ ডিসেম্বর ঘুমের মধ্যেই মৃত্যুররণ করেন। ম্যাকলুহানের বই The Guntenberg Galaxy:The Making of Typographic Man ১৯৬২ সালে প্রকাশিত হয়। এ বইয়ের ম্যাকলুহান দেখিয়েছেন কীভাবে কমিউনিকেশন টেকনোলজি তথা আক্ষরিক লেখা,প্রিন্টিং প্রেস এবং মিডিয়া বিভিন্ন দর্শনগত ভিত্তিকে প্রভাবিত করে এবং এর ফলশ্রুতিতে সামাজিক প্রতিষ্ঠানগুলো কত গভীরভাবে অনুপ্রাণিত হয়ে থাকে।  

আশা করি অনেকটুকু বুঝাতে এবং সহজ করে দিতে সক্ষম হয়েছি । আরো বিস্তারিত তথ্য জানতে আমাদের সাথে জুড়ে থাকুন ।